বাংলাদেশে সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বাড়ছে বছরে ৬-২০ মিলিমিটার

বাংলাদেশের তিনটি ভিন্ন উপকূলীয় অঞ্চলে প্রতি বছর সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বাড়ছে ৬-২০ মিলিমিটার করে। বিগত ৩০ বছরের তথ্য পর্যালোচনা করে একথা জানানো হয়েছে নতুন একটি গবেষণায়।

‘সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি ও বাংলাদেশের উপকূলীয় অঞ্চলের বিপন্নতা’ শীর্ষক এক গবেষণায় দেখা গেছে গঙ্গা অববাহিকতায় উচ্চতা বাড়ছে বছরে ৭-৮ মিলিমিটার। মেঘনা অববাহিকায় ৬-৯ মিলিমিটার ও চট্টগ্রামের উপকূলীয় অঞ্চলে ১১-২০ মিলিমিটার।

Bangladesh Flood

নিজেদের তথ্য উপাত্ত ব্যবহার করে এমন গবেষণা বাংলাদেশ করেছে এবারই প্রথমবারের মতো। পরিবেশ মন্ত্রনালয়ের ‘জলবায়ু পরিবর্তন বিভাগের’ উদ্যোগে এই গবেষণাটি করা হয়েছে বাংলাদেশ ক্লাইমেট চেঞ্জ ট্রাস্ট ফান্ডের অধীনে। গবেষণাটি প্রস্তুত করেছে সেন্টার ফর এনভায়রন্টমেন্ট অ্যান্ড জিওগ্রাফিক্যাল সাভিস (সিইজিআইএস)। গত ২৯ অক্টোবর গবেষণাটি প্রকাশ করে বাংলাদেশ সরকার।

এর আগে ইন্টারন্যাশনাল প্যানেল অন ক্লাইমেট চেঞ্জ (আইপিসিসি)-র গবেষণায় দেখা গিয়েছিল যে, ২১০০ সাল নাগাদ সামগ্রিকভাবে বাংলাদেশের সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি পেতে পারে ৩০০ থেকে ৭১০ মিলিমিটার। তবে বঙ্গোপসাগরের ক্ষেত্রে সেটা ছিল ০.২-১ মিটার।

বৈশ্বিকভাবে ১৯০১ থেকে ২০১০ সালের মধ্যে সমুদ্রপৃষ্ঠের গড় উচ্চতা বেড়েছে বছরে ১.৭ মিলিমিটার। সাম্প্রতিক সময়ে উচ্চতা বৃদ্ধির হার অনেক বেশি। ১৯৯৩ থেকে ২০১২ সাল পর্যন্ত সংখ্যাটা ৩.২ মিলিমিটার। বৈশ্বিক পরিস্থিতির তুলনায় বঙ্গোপসাগর উপকূলীয় অঞ্চলের সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধির হার অনেক বেশি বলে সতর্ক করেছেন পানিসম্পদ বিশেষজ্ঞ ড. আইনুন নিশাত।

জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ভয়াবহ প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের ঝুঁকির মুখে থাকা দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ আছে প্রথম সারিতে। সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধির ফলে বাংলাদেশের একটা বড় অংশ পানির নিচে চলে যেতে পারে বলে অনেক আগে থেকেই বলে আসছেন বিজ্ঞানীরা।

সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি সম্পর্কে আরও ভালো তথ্য পাওয়ার জন্য অন্তত ১০টি স্থানে উচ্চ মানসম্পন্ন স্বয়ংক্রিয় পরিমাপ যন্ত্র স্থাপনের পরামর্শ দিয়েছেন গবেষণা পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠান সিইজিআইএস-এর প্রধান মালিক ফিদা আব্দুল্লাহ খান।

এই জায়গাগুলো হবে হিরন পয়েন্ট, সুন্দরবন, খেপুপাড়া, চর চাঙ্গা, সন্দ্বীপ, মহেশখালি, নোয়াখালি, চট্টগ্রাম বন্দর, কক্সবাজার ও টেকনাফে।

A Sinking Delta

One comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*