হাওরে হাহাকার: তলিয়ে যাচ্ছে জনপদ

বাংলাদেশের মধ্যাঞ্চলে অবস্থিত কিশোরগঞ্জের হাওর এলাকায় চলছে ভয়াবহ বন্যা পরিস্থিতি। চৈত্র মাসে অসময়ের বৃষ্টিতে তলিয়ে গেছে শত শত একর আবাদী জমি ও বসতবাড়ি। শুধু তাই নয়, সম্প্রতি খবর মিলেছে জলাবদ্ধতায় মরতে শুরু করেছে সেখানকার গবাদি পশু ও খামারের মুর্গি। এতে করে কৃষিজীবি হাওরবাসি শুধু আর্থিক ক্ষতিই নয়, বরং পরিবেশ ও স্বাস্থ্যের ঝুঁকিতেও রয়েছেন।

জলবায়ু পরিবর্তনের ফলস্বরূপ গতমাসে অসময়ে মুষলধারে বৃষ্টি শুরু হয় কিশোরগঞ্জের বৃহত্তর হাওর অঞ্চলে। টানা বৃষ্টিপাতে তলিয়ে যায় কৃষকের বহু সাধনার ফল জীবনধারণের একমাত্র সম্বল সোনার ধান। এ নিয়ে এ পর্যন্ত ছোটবড় সংবাদমাধ্যমে খবর আসলেও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এখনো কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি বলে অভিযোগ এলাকাবাসির। কিশোরগঞ্জের বাসিন্দা সমাজকর্মী এবং এ্যাক্টিভিস্ট মুহম্মদ আশরাফ জানান, ” চালের দাম অস্বাভাবিক,  বাজারে বেচাকেনা নেই বললেই চলে। গতকাল দেখলাম একজন কৃষক তার গাভীন একটি গরু একটা বড় বাছুর সমেত বিক্রি করে দিলো। মানুষ সহায়সম্বল সব বিক্রি করে পেটের খিদে মেটাচ্ছে। ”
তিনি আরও দাবী করেন, হাওরকে দ্রুত দুর্গত এলাকা ঘোষণা করে সরকারি এবং বেসরকারিভাবে পরিস্থিতি মোকাবেলায় সকলকে এগিয়ে আসতে হবে।

হাওরবাসির অভিযোগ, রাষ্ট্রপতি একবার হেলিকপ্টারে পরস্থিতি পরিদর্শন করে গেছেন, কিন্তু এখনো সরকারিভাবে কোন ত্রাণ আসেনি। হয়তো শীঘ্রই কোন সাহায্য আসবে, এই আশায় মানবেতর জীবনযাপন করে চলেছেন তারা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*